counter ‘সিনহা বলতো পৃথিবীতে ভালো কিছু রেখে যেতে চাই’

বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘সিনহা বলতো পৃথিবীতে ভালো কিছু রেখে যেতে চাই’

  • 11
    Shares

ডেস্ক নিউজ : ‘এই দেশ আর দেশের মানুষই সমস্ত ভাবনার বিষয় ছিল  সিনহার। বিশেষ করে পরবর্তী প্রজন্ম নিয়ে ভাবতো সে। এর অংশ হিসেবে সমাজের নানা অসঙ্গতি নিয়ে ডকুমেন্টারি নির্মাণ করছিল সে। বলতো আম্মু, মৃত্যুর আগে ভালো কিছু রেখে যেতে চাই পৃথিবীতে, যাতে মানুষ উপকৃত হয়।’

কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন সদ্য পুলিশের গুলিতে নিহত সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানের মা নাসিমা আক্তার।

ছেলে হারিয়ে শোকে মুহ্যমান নাসিমা আক্তার। মাত্র তিন দিন আগে তাঁকে ছেড়ে পরপারে চলে গেছেন সিনহা। দেয়ালে বড় একটি ছবি টানানো ছেলের। ছবির নিচে সোফায় বসে আছেন নাসিমা আক্তার। কান্নাজড়িত কণ্ঠে আজ সোমবার (১০ আগস্ট) গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

নাসিমা আক্তার বলেন, ‘সিনহা বলতো ভালো কাজ দিয়ে যদি মানুষকে আকৃষ্ট করতে পারি, এর চেয়ে বড় আর কী হতে পারে। আমি বলতাম, বাবা তুমি যে আর্মি থেকে চলে আসছো, সেখানে এতগুলো কোর্স তাহলে কেন করলে? এখন তোমার কত প্রমোশন হতো, ভালো অবস্থান হতো তোমার। সে বলতো মাম্মি, ‘পাওয়ার! পাওয়ার কি? পাওয়ার আজ আছে কাল নেই, মানুষে হৃদয়ের মধ্যে থাকব, কাজ করব। আর কাজের কথা মুখে বলার মতো কিছু নয়।’

নাসিমা বলেন, ‘কাজের কথা মুখে বলতো না সে। আমি বুঝতাম সে কথায় বিশ্বাসী ছিল না, কাজে বিশ্বাসী ছিল। যেমন বিশ্ব ভ্রমণ করা নিয়ে সে বলতো, এটা তো স্বাভাবিক ঘটনা, এইটা নিয়ে কোনো পূর্ব পরিকল্পনা নিয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ সে জানাতে চাইতো না। সারপ্রাইজ দেবে। কিছু উপহার দেবে দেশকে। নেক্সট জেনারেশনের কথা অনেক ভাবতো। বলতো আমরা যদি কিছু ভালো রেখে যাই পৃথিবীতে। আম্মু এই দেশের সবাই কেবল নেগেটিভ জিনিস দেখে, এই দেশে কিচ্ছু হবে না। কেন? এই ধরনের চরিত্রের অধিকারী সে ছিল।’

‘আমি জানতাম, তাঁর চরিত্র এই ধরনের। তাঁর এসব বিষয়ে আমার পূর্ণ সমর্থন ছিল। আমার ছেলের প্রত্যেকটি কর্মকাণ্ডে আমার পূর্ণ সমর্থন ছিল। আমি তাঁকে নিয়ে গর্ববোধ করতাম। ও যেটা করতো, আমার মনে হয় আমার চরিত্রের সঙ্গে তাঁর চরিত্রের মিল আছে। আমাদের অন্য কোনো চাহিদা ছিল না। শুধু কাজ করতে চাইতো। সেই কাজে আমি কখনো বাধা দেইনি।’

‘আমি বলতাম সবাই বিয়ে-থা করে, তুমি করবে না? সে বলতো ওইসব ঝামেলায় জড়িয়ে লাভ নেই। কারণ আমি কাজের প্রয়োজনে যেসব জায়গায় যাব, পিছুটান থাকলে সেসব কাজ সঠিকভাবে করা যাবে না। ডকুমেন্টারিটা করতে গেল- এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলতো না, ভাসাভাসা বলতো, সারপ্রাইজ দিতে চাইতো। এমন একটি কাজ করবে, যা ক্রিয়েটিভ কাজ সবাই সারপ্রাইজড হবে। আমি সারপ্রাইজড হবো। আমি বলতাম, তুমি কী কাজ করো; আত্মীয়-স্বজনরা বলতো, ‘সে কী কাজ করে কোনো টাকা-পয়সা তো আসে না। ও বলতো আমি আমার মনের খোরাকের জন্য কাজ করি। এটা দিয়ে মানুষ উপকৃত হবে। আমার যেটা ভালো লাগে আমি সেটা করব’। এসব কথা ছেলেকে বললে বলতো, ‘টাকা পয়সার কথা আমি ভাবি না।’- এই ছিল তাঁর চরিত্র। আমি বলতাম, ‘তুমি যে কাজ কর, কী কাজ করো?’ বলতো, ‘এই যে ডকুমেন্টারি তৈরি করছি।’ আমি বলি, ‘তুমি তো সেটা বল না।’ বলতো, ‘এখনো বলার মতো কিছু হয়নি আম্মু। বলার মতো যখন হবে তখন বলব।’

‘তবু তাঁর প্রতি আমার আস্থা ছিল শতভাগ। আমি বসে থাকি এই ভেবে যে আমার ছেলে কাজ করছে। সে যা করতে চাইতো আমি তা করতে দিতাম। আমাকে বলতো আম্মু, এই দেশের বাবা-মায়েরা কেমন জানি, খালি সন্তান ডাক্তার হবে, ইঞ্জিনিয়ার হবে, আরে তোমাদের জন্য আমরা কেন বলির পাঠা হব’- বলেন নাসিমা আক্তার।

‘সিনহা আমাকে বলতো, আচ্ছা, তোমরা বাবা-মায়েরা লোকের সামনে বলবা ছেলে ডাক্তার হয়েছে, ইঞ্জিনিয়ার হয়েছে। কিন্তু আমার আকাঙ্খা তো ভিন্ন। আমার সঙ্গে এ নিয়ে  প্রায়ই ফান করতো। আমি বুঝাতাম, আমাদের দেশের আর্থ-সামাজিক পরিবেশ তো আসলে এই রকম। বাইরের দেশের হলে ভিন্ন কথা। সেখানকার অর্থনৈতিক নিরাপত্তা, সামাজিক নিরাপত্তা- সবই আছে। কিন্তু আমাদের এখানে তো তা নেই। এই কারণে এখানে আমাদের বাবা-মায়েদেরও সন্তানে এসব বিষয়গুলো নিয়ে ভাবতে হয়’- তো এই ছিল আমার ছেলের চরিত্রগত বৈশিষ্ট।

এই বিভাগের আরো খবর