counter তাড়াইল বোয়ালিয়া বিলে অবৈধভাবে মাছ শিকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের

বুধবার, ২১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

তাড়াইল বোয়ালিয়া বিলে অবৈধভাবে মাছ শিকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের

  • 99
    Shares

তাড়াইল প্রতিনিধি(কিশোরগঞ্জ): কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে বোয়ালিয়া বিলে অবৈধভাবে মাছ শিকারের অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে,উপজেলার ধলা ইউনিয়নের সেকান্দরনগর মৌজার ২৭একর ৮৫শতাংশ ভূমি সরকারি ব্যবস্থাপনার যাবতীয় নিয়ম কানুন মেনে বোয়ালিয়া বিল জলমহাল (বাংলা ১৪২৭সাল) এক বছরের জন্য ৫লক্ষ ৫০হাজার টাকা(ভ্যাটসহ মোট ৬লক্ষ ৬০হাজার টাকা) ব্যাংক চালানের মাধ্যমে জমা দিয়ে সেকান্দরনগর (গজেন্দ্রপুর) গ্রামের নুরুল ইসলাম ভূঁইয়ার ছেলে মো.তারেক ভূঁইয়া মাছ চাষ করার জন্য লিজ গ্রহন করেন।

বিগত ১৬জুলাই’২০২০ তারিখে ধলা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভূমি সহকারি কর্মকর্তা উক্ত বোয়ালিয়া বিলের দখল তারেক ভূঁইয়ার বরাবরে হস্থান্তর করেন।দখল পাওয়ার পর বোয়ালিয়া বিলের রক্ষনাবেক্ষন ও মাছের পোনা অবমুক্তকরণসহ প্রায় ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকা খরচ করেন তারেক ভূঁইয়া।
এলাকার কিছু দাঙ্গাবাজ ও কুচক্রীমহল তারেকের লিজ নেয়া জলমহালে প্রভাব খাটিয়ে পেশিশক্তি ব্যবহার করে বিভিন্ন প্রকার কারেন্ট জাল,কোনা জাল,ছাবা জাল দিয়ে প্রকাশ্যে ও রাতের আঁধারে মাছ লুটপাট করে নিয়ে যাচ্ছে বলে ১৯জনের নামে তারেক নিজ স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন জেলা প্রশাসক বরাবর।ওই অভিযোগে তিনি জানান,মাছ লুটপাট ও চুরির মুলহোতা এবং ইন্দনদাতা উত্তর সেকান্দরনগর গ্রামের মৃত আ:সাহেদ ভূঁইয়ার ছেলে ঔষধ ব্যাবসায়ী তাড়াইল সদর বাজারের শাপলা মেডিকেল হলের সত্বাধিকারি নূরে আলম সিদ্দিকি সহ আরও ১৮জন এ ঘৃণ্য কাজে জড়িত।তাদের নিষেধ করলে মারমুখী আচরণ করছে।বিলের মধ্যে মাছ চাষের জন্য প্রয়োজনীয় যেসব অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে তা ভেঙে দিয়ে মাছ লুটপাট করে নিয়ে যাচ্ছে।

গত ৬আগস্ট দুপুরে বোয়ালিয়া বিলে অবৈধভাবে মাছ শিকারিদের নিষেধ করায় সেকান্দরনগর চৌমেইলের নিকট সরকারি রাস্তায় তারেকের সহযোগী মাছ চাষীদের উপড় দেশিয় অস্র নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালায় নুরে আলম সিদ্দিকির হুকুমে প্রতিপক্ষরা।ওই একই দিনে জেলা প্রশাসক ছাড়াও ৮জন স্বাক্ষীসহ তাড়াইল থানায় ৩০ জনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ করেন তারেক ভূঁইয়া।

এ ব্যাপারে লিজ গ্রহীতা তারেক জানান,সরকারি ডাকের মাধ্যমে প্রতিপক্ষের চেয়ে প্রায় ৫গুন বেশি টাকা দিয়ে সরকারের কাছ থেকে চলতি বাংলা সনের চৈত্রমাস পর্যন্ত বোয়ালিয়া বিল আমি মাছ চাষের জন্য বরাদ্ধ পেয়ে মাছ চাষ করে আসছি।এলাকার চিহ্নিত দাঙ্গাবাজ ও কিছু কলহপ্রিয় লোকজন মিলে আমাকে আর্থিক ক্ষতির মুখে ঠেলে দিচ্ছে।এদের প্রতিহত করার জন্য সরকারের উর্ধতন কতৃপক্ষের হস্থক্ষেপ কামনা করছি।

 

এই বিভাগের আরো খবর