counter চীন সীমান্তে উন্মোচিত হলো ‘ডার্ক সিক্রেট’

রবিবার, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চীন সীমান্তে উন্মোচিত হলো ‘ডার্ক সিক্রেট’

  • 1
    Share

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের পশ্চিমাঞ্চলীয় সীমান্তে আটক শিবির সম্পর্কে রহস্য উদঘাটন হয়েছে। দেশটি যখন আফগানিস্তানে যুদ্ধাপরাধের জন্য অস্ট্রেলিয়াকে দোষারোপ করছে ঠিক তখনই কাজাখস্তানের সীমান্তে চীনের নিজস্ব মানবাধিকার লঙ্ঘন বাড়ছে।বাজফিড নিউজের একটি প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব তথ্য। সাংবাদিকরা পাহাড়ের চূড়ায় একটি শিবিরের সন্ধান পেয়েছেন যা দেড় বছরে দশগুণ আকার ধারণ করেছে।

বাজফিডের এক সাংবাদিক মেঘা রাজাগোপালান ক্যাম্পের বেশ কিছু ছবি শেয়ার করে  টুইট বার্তায় বলছেন, চীনে মঙ্গোলক্রে বা ঝাউসু একটি অন্ধকার রহস্যযুক্ত পর্বত। এই ক্যাম্পটি শুরুর পরে মাত্র দেড় বছরের মধ্যে তার মূল আকারের ১০ গুণ বেড়ে গেছে এবং শুরুর পর থেকে ডিটেনশন কমপ্লেক্স হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ওইখানে এখন ডর্মস, অ্যাডমিন বিল্ডিং এবং কারখানা রয়েছে। যারা বন্দী রয়েছেন তাদের সুবিধা অসুবিধা তুলে ধরেছেন ওই সাংবাদিক। রাজগোপালান বলছেন যারা ভিতরে বন্দী তাদের উপর অমানবিক নির্যাতন করা হয়েছে। বন্দুকের বাট দিয়ে মারধর করা হয়েছে। আত্ম সমালোচনার নথিতে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করা হয়েছে। পশ্চিমা চীনের জিনজিয়াং অঞ্চলে এই শিবিরে উইঘুর, কাজাখ এবং অন্যান্য মুসলিম সংখ্যালঘুদের আটক করে রাখা হয়েছে।

শিবিরগুলো গণহত্যার জন্য নকশাকৃত:

আটককৃতদের বেশিরভাগই জিনজিয়াং অঞ্চলে বসবাসকারী স্থানীয় ছিলেন। তবে অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির জিনজিয়াং উইঘুর স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের শীর্ষস্থানীয় বিশেষজ্ঞ ডাঃ মাইকেল ক্লার্ক বলছেন, কয়েক বছর ধরে কাজাখস্তান নাগরিকদের এমন শিবিরে বন্দী করার ঘটনা ঘটেছে।  ইয়াহু নিউজকে দেওয়া বিবৃতিতে  তিনি আরো বলেন, আমার দৃষ্টিতে এটি গণহত্যা।

বন্দিদের  তাদের মাতৃভাষা, ধর্মীয় বিশ্বাস এবং সাংস্কৃতিক অনুশীলন ত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়েছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মতে, প্রায় ১ কোটি মানুষ চীনা শিবিরগুলিতে আটক রয়েছে, তবে অনুমান অনুসারে এই সংখ্যা আরও বেশি।

শিবিরগুলোর সাথে জোরপূর্বক শ্রম বিশ্বের কয়েকটি বৃহত্তম সংস্থার সাথে যুক্ত করা হয়েছে। বন্দিদের উপর ভয়ঙ্কর মানব পরীক্ষা চালানো হয়েছে। যদিও এর বেশিরভাগ অংশ এখনও রহস্যের কবলে রয়েছে। চীন সরকার বলছে শিবিরগুলো “আদর্শিক ভাইরাস নির্মূল করার” জন্য শিক্ষা প্রদান করে তবে মানবাধিকার সংগঠনগুলি বলছে এই ব্যবস্থা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হলোকাস্টের পরে সবচেয়ে বড় গণহত্যার সমান।

অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই) জানিয়েছে, তারা জিনজিয়াং প্রদেশে ৩৮০ টিরও বেশি “সন্দেহভাজন আটক সুবিধা” সনাক্ত করেছে। এই প্রতিবেদন প্রকাশ পাওয়ার পরই বাজফিডের প্রতিবেদন সামনে আসে। তবে চীনের দাবি অনেক উইঘুর মুক্তি পেয়েছেন। স্যাটেলাইট চিত্র এবং বিশ্লেষণের উপর নির্ভর করে প্রাপ্ত সুবিধাগুলির সংখ্যা আগের অনুমানের চেয়ে প্রায় ৪০ শতাংশ বেশি।

প্রাক্তন সিসিপ কর্মকর্তার কথা:

চীন তার পশ্চিমা দেশগুলির সাথে সংঘাত চালিয়ে যাচ্ছে। প্রাক্তন প্রবীণ চীনা কমিউনিস্ট পার্টির (সিসিপি) সদস্য রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের অধীনে চীনা শাসনের বর্ধমান বর্বরতা সম্পর্কে কথা বলেছেন এবং এই নিয়ে একটি নিবন্ধ লিখেছেন। কাই শা একবার বেইজিংয়ের সেন্ট্রাল পার্টি স্কুলে কাজ করেছিলেন যেখানে তিনি সিসিপি আদর্শে অভিজাত কর্মকর্তাদের অন্তর্ভুক্ত করার জন্য দায়বদ্ধ ছিলেন তবে তিনি এক পর্যায়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে আসেন এবং দলটির নিন্দাও করেন।

তিনি বলেন, একবার সরকারী নীতিমালার একজন গর্বিত ডিফেন্ডার হয়ে আমি  মামলাটি শুরু করেছিলাম। যে মানুষগুলো গত আট বছর ধরে চীনের মূল ভূখণ্ডে বাস করেনি তারা খুব সহজেই বুঝতে পারে যে সরকার কতটা নির্মম হয়েছে, কতটা শান্ত ট্র্যাজেডি রচনা করেছে।

এই বিভাগের আরো খবর